ক্ষমতার অপব্যবহার করতে চাই না

বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনের বিড়ম্বনায় পড়েছেন প্রখ্যাত গীতিকার আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। এ গুণী শিল্পীর দুটি সিম অন্যজনের নামে নিবন্ধন হয়ে গেছে। বিষয়টি নিয়ে মামলা করার পরামর্শ দিয়েছেন অনেকেই। তবে এ বরেণ্য শিল্পী জানান, মামলা করবেন না তিনি।

এ প্রসঙ্গে আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল বলেন, ‘আমি ইচ্ছে করলেই থানা-পুলিশ করতে পারতাম, কিন্তু দুটি নির্দোষ মানুষ ও তাদের পরিবার-পরিজনদের কথা ভেবে তা করিনি। আমি সার্বক্ষণিক পুলিশ পাহারায় থাকি। আমার বাসাটাই একটা ছোটখাটো পুলিশ স্টেশনের মতো। আমি ক্ষমতার অপব্যবহার করতে চাই না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার গ্রামীণফোনের সিম যে মানুষটি পুনরায় রেজিট্রেশন করেছেন তাকে আমি খুব ভালো করেই চিনি। অনেক কথা হয়েছে তার সাথে। যার কাছ থেকে তিনি সিমটি ২ হাজার টাকা দিয়ে কিনেছেন তাকেও আমি ভালো করেই চিনি। এ দুটি মানুষের পরিচয়, ঠিকানা ও ছবি আমার কাছে আছে। কিন্তু এরা নির্দোষ, এদের দু’জনার একজনও দোষী নয়।’

গ্রামীণফোনের দিকে ইঙ্গিত করে বুলবুল বলেন, ‘তবে থার্ড পারসন, যিনি গ্রামীণফোনের কেউ হবেন হয়তো। তিনিই হচ্ছেন আসল অপরাধী। কোনো প্রকার নোটিশ না করে তিনি আমার ১৭ বছরের পরিচিত সিমটির অধিকারস্বত্ব থেকে আমাকে বঞ্চিত করেছেন।’

সিম নিবন্ধন করতে গিয়ে আরও অনেকেই এমন বিরম্বনায় পড়েছেন। সরকারের নির্ধারিত ৩১ মের মধ্যে যারা সিম নিবন্ধন করেননি, তাদের সিমটি পূর্বঘোষণা অনুযায়ী ১ জুন থেকে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে

Leave a Reply